জুতা বদল কবিতা- কালিদাস রায়

জুতা – বদল

কালিদাস রায়

দিলীপ রায়ের গান শুনতে সুধীন ভায়ার বাড়ী,
গগিয়েছিলাম। ফেরার সময় পরতে তাড়াতাড়ি
বদলে গেল জুতো অর্থাৎ একপাট হলো আমার
আর একপাট রামার শ্যামার কিংবা কারো মামার
পরের পাটি পায়ে পায়ে জানায় অসন্তোষ
একপাটি কয় ক্যাঁচর এবং অন্য পাটি ফোঁস।
আগন্তুকের বয়স বেশী এবং বেজায় ঢিলে,
নৌকো হয়ে ঝুল্ল পায়ে একবারে না মিলে।
এ যে হলো বৃদ্ধজনের বালাবধূর প্রায়
কোন ঘটকে এমন অঘটন ঘটালে হায়।
পড়েছিলাম ডি এল রায়ের ‘আষাঢ়ে’ যৌবনে,
বৌ-বদলের রসের কথা কেবল পড়ে মনে।
কে ঘটালে এমন বিপদ কোথায় তুমি ভাই
তোমার কি ভাই একেবারেই হুঁস কি হদিস নাই?
আমার পাটি তোমার পায়ে ঢুকল কেমন ক’রে?
তুমি কি ভাই নিয়ে গেছ বগল দেবে ওরে?
তোমার চরণ চালাও যদি আমার পাটির পেটে
গোচর্ম্ম যে তোমার পায়ের চর্ম্ম হবে এঁটে।
এই পাটিটির হাম্বা রোদন পশছে নাকি কাণে
প্রাচীন প্রণয় তোমার পাটির কেমন কে বা জানে!
হয়ত অনেক জোড়া জুতো আছে তোমার ঘরে,
নয়ত জুলুম করছ তুমি ভাইএর জুতো পরে।
তা যদি হয় বিপদ আমার ভাবনা তোমার কিসে?
বদল ভাঙার নেইক আশা দ্বিতীয় মজলিসে।
আস্তাকুঁড়ের পাশ হতে ভাই জীর্ণ জোড়া এনে
কাঁটির বিঁধন সহ্য ক’রে বেড়াচ্ছি তাই টেনে।
কেমন ক’রে বেরুই আমি অমিল পায়ে পথে?
বদল ভাঙো, জানাই আমি মাসিকের মারফতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10-5=? ( 5 )