যখন বিজ্ঞানের অন্যান্য শাখার নামের শেষে ‘বিজ্ঞান’ শব্দ যুক্ত করা হয় (পদার্থবিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান), তখন স্বভাবতই প্রশ্ন উঠতে পারে যে, রসায়নকে কেন রসায়নবিজ্ঞান বলা হয় না?
আসলে, অন্য শাখার ক্ষেত্রে বিজ্ঞান শব্দটা যুক্ত করা অনেকটা বাধ্যতামূলক, কিন্তু রসায়নের ক্ষেত্রে তা বাধ্যতামূলক নয়। কারণ, অন্যান্য শাখার ক্ষেত্রে বিজ্ঞান শব্দটি বাদ দিলে পুরো অর্থই পাল্টে যায়। যেমনঃ-

পদার্থবিজ্ঞান বলতে আমরা কী বুঝি? বিজ্ঞানের যে শাখায় পদার্থ ও শক্তি নিয়ে বিশদভাবে আলোচনা করা হয়, তাকে পদার্থবিজ্ঞান বলে। এখন, পদার্থবিজ্ঞান থেকে বিজ্ঞান বাদ দিলে থাকে পদার্থ। পদার্থ বলতে আমরা বুঝি যার ওজন আছে, জায়গা দখল করে, বল প্রয়োগে বাধার সৃষ্টি করে। অর্থাৎ, ‘পদার্থবিজ্ঞান’ আর ‘পদার্থ’ দুইটার অর্থ আলাদা। তাই বিজ্ঞানের শাখাকে আলাদা করে চিহ্নিত  করার জন্য পদার্থের সাথে বিজ্ঞান শব্দটা যোগ করা অত্যন্ত জরুরি।
একইভাবে, ‘জীব’ বলতে আমরা বুঝি যার জীবন আছে। কিন্তু ‘জীববিজ্ঞান’ বলতে বিজ্ঞানের সে শাখাকে বুঝায় যে শাখায় জীবের জন্ম-মৃত্যু, জৈবনিক ক্রিয়া-বিক্রিয়া নিয়ে আলোচনা করা হয়। অর্থাৎ, এইক্ষেত্রেও বিজ্ঞানের শাখাকে আলাদা করে চিহ্নিত  করার জন্য জীবের সাথে বিজ্ঞান শব্দটা যোগ করা অত্যন্ত জরুরি।

এবার আসা যাক, রসায়নের বেলায়। বিজ্ঞানের যে শাখায় পদার্থের উপাদান, কাঠামো, ধর্ম (ভৌত ও রাসায়নিক) ও পারস্পরিক ক্রিয়া-বিক্রিয়া, সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়, তাকে রসায়ন বলা হয়। আর, রসায়নবিজ্ঞানের সংজ্ঞা? বিজ্ঞানের যে শাখায় পদার্থের উপাদান, কাঠামো, ধর্ম (ভৌত ও রাসায়নিক) ও পারস্পরিক ক্রিয়া-বিক্রিয়া, সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়, তাকে রসায়নবিজ্ঞান বলা হয়।
অর্থাৎ, রসায়ন বলুন বা রসায়নবিজ্ঞান বলুন তাতে অর্থের কোনো পরিবর্তন হচ্ছে নাহ। তাই, রসায়নবিজ্ঞান না বলে শুধুই রসায়ন বলা হয়। আর, রসায়নবিজ্ঞান বললে যে ভুল হবে, তা কিন্তু নাহ।